নাটোরে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর হামলা-হুমকি সহ-সভাপতির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলের হুমকি যুবদল নেতাদের পিটিয়ে তিনটি মোটরসাইকেল ছিনতাই

0
154

নাটোর প্রতিনিধি
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই নাটোরে বিএনপি এবং অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর অব্যাহত ভাবে হামলা চালিয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে। জেলা বিএনপির সহ-সভাপতির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলের হুমকি দিয়ে যুবদল নেতাদের পিটিয়ে তিনটি মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। সোমবার নাটোর জেলা বিএনপি অফিসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমিনুল হক বলেন, নাটোর সদর আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সংসদ সদস্য মোঃ শফিকুল ইসলাম শিমুলের নির্দেশে তার পেটুয়া হেলমেট বাহিনী নাটোর সদর ও নলডাঙ্গা উপজেলায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। তারা পরিকল্পিতভাবে বেছে বেছে বিএনপির ত্যাগী, নিবেদিত ও পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করছে। ধারাবাহিক এই নির্যাতনের শিকার হয়েছে জেলা যুবদলের তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক রওশন আলী। তাকে সোমবার সকালে কাঠাল বাড়িয়া এলাকায় মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে তার কাছে থাকা একটি মোটরসাইকেল ও দামী মোবাইল সেট কেড়ে নেয়া হয়। এসময় তারা ঝাউতলায় জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোঃ শহিদুল ইসলাম বাচ্চুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলে নিয়ে নির্বাচন প্রচার কেন্দ্র করার হুমকি দেয়। এই বাহিনী পিপরুল ইউনিয়নের বিএনপি কর্মী জহুরুল মেম্বারকে মারধর করে তার কাছে থাকা মোটর সাইকেলটি ছিনিয়ে নেয়। এছাড়াও ওই বাহিনী সোমবার সকালে দিঘাপতিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার ও গত ইউপি নির্বাচনে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ সাইফুল ইসলামকে মারার জন্য ধাওয়া করলে তিনি প্রানভয়ে নদী পার হয়ে প্রাণে বাঁচলেও সন্ত্রাসীরা তার দামী মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যায়। মোঃ আমিনুল হক আরও জানান, শিমুলের সন্ত্রাসী বাহিনী ছাতনী ইউনিয়নে বেজপাড়া গ্রামে ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক গোলাম মোস্তফা বাবুকে বেধরক মারপিট করেছে। তারা ৪নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি পক্ষাঘাতগ্রস্থ মোঃ সাইফুজ্জামান সৌরভ এর বাড়িতে ঢুকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করেছে। এছাড়াও তারা বড়হরিশপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হযরত মেম্বার ও ইব্রাহিম মেম্বারকে হুমকি দেয়া হয়ে হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সরকার দলীয় এমপি প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য স্টিকার লাগানো গাড়িতে করে নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রায় প্রতিদিনই দেড়শ’ থেকে দুইশ’ দলীয় নেতাকর্মী ও গাড়ির বহর নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় শো-ডাউনের মাধ্যমে গণ সংযোগের নামে পথসভা করে ভোট প্রার্থনা করছেন। এসব অভিযোগ নিয়ে দলীয়ভাবে দু’একদিনে মধ্যেই নির্বাচন কমিশন ও থানায় জানানো হবে। এছাড়াও গত শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট এম রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর বাড়িতে অস্থায়ী কার্যালয়ে যে হামলা করে ভাংচুর ও মোটর সাইকেলে আগুন দেয়া হয় তার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহে আছে। এব্যাপারে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করেও কোন ফল পাওয়া যায়নি। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যেও মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোঃ শহিদুল ইসলাম বাচ্চু ও রহিম নেওয়াজ, পৌর বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন তালুকদার টগর, নলডাঙ্গা উপজেলা বিএনপির সধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন, জেলা যুবদলের সভাপতি এ হাই তালুকদার ডালিম এবং জেলা জাসাস সভাপতি হাবিবুল ইসলাম হেলাল। এসব ব্যাপারে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ মোর্তাজা আলী বাবলু বলেন, তাদের দলের এমপি প্রার্থী গণসংযোগ করার সময় স্থানীয় লোকজন জড়ো হয়ে তার সাথে কথা বলতেই পারে এতে আচরণবিধি লঙ্ঘন হওয়ার কোন কারণই ঘটেনি। বিএনপি নেতা মোঃ শহিদুল ইসলাম বাচ্চুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলে নেয়ার হুমকি মোটেও সঠিক নয়, এটি একটি মনগড়া অভিযোগ। যুবদলের কোন নেতা বা কর্মীকেই মারধর করা হয়নি বা তাদের কাছ থেকে কোন মোটর সাইকেলও ছিনিয়ে নেয়া হয়নি। তাদের নিজেদের মধ্যে কোন লেনদেনের বিষয়ে এমনটি ঘটতে পারেন বলে তিনি জানান।  বিএনপি প্রার্থী দুলুর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যাওয়ায় তাদের শুধু মন না মাথাও খারাপ হয়ে গেছে আর সে কারণেই আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে নানান মিথ্যা অভিযোগ এনে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা চলছে।
নাসিম উদ্দীন নাসিম
নাটোর প্রতিনিধি
তাং-০৩–১২-২০১৮
০১৭৩৭০৬৫৬০৫

একটি মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন
আপনার নাম লিখুন